30.8 C
Rajbari
সোমবার, জুন ২৭, ২০২২
Homeজাতীয়সিনহা হত্যা মামলায় ২০২৭ সালের আগে ডেথ রেফারেন্সের শুনানি নাও হতে পারে!

সিনহা হত্যা মামলায় ২০২৭ সালের আগে ডেথ রেফারেন্সের শুনানি নাও হতে পারে!

ডেস্ক রিপোর্ট: ফৌজদারী কার্যবিধি অনুযায়ী নিম্ন আদালতের দেওয়া মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকরে হাইকোর্টের অনুমোদন নিতে হয়। সেক্ষেত্রে অধস্তন আদালতের মামলার রায়, তদন্ত প্রতিবেদন, এজাহারসহ সব নথি ডেথ রেফারেন্স আকারে হাইকোর্টে পাঠানো হয়ে থাকে। রায়দানকারী বিচারক কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল দ্রুত এই ডেথ রেফারেন্স নথি হাইকোর্টে প্রেরণ করবেন বলে জানা গেছে।

এদিকে ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে এলে তা যাচাই-বাছাই করে হাইকোর্টের ডেথ রেফারেন্স শাখা। মামলার সব নথি ক্রমানুসারে সাজিয়ে প্রস্তুত করা হয় পেপারবুকের জন্য। আর এই পেপারবুক প্রস্তুত করা হয় সরকারি ছাপাখানা বিজি প্রেসে। পেপারবুক প্রস্তুত হলেই মামলাটি শুনানির জন্য প্রস্তুত হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হয়। তবে পেপারবুক প্রস্তুত হলেই ডেথ রেফারেন্স ও আসামির আপিল শুনানি হবে সালের ক্রম অনুযায়ী। উচ্চ আদালতে মামলাজটের কারণেই এই পরিস্থিতির সৃষ্টি। বর্তমানে হাইকোর্টে ২০১৫/২০১৬ সালে অধস্তন আদালতে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের শুনানি চলছে। সেই হিসাবে সালের ক্রম অনুযায়ী মেজর সিনহা হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ওসি প্রদীপ ও এসআই লিয়াকতের ডেথ রেফারেন্স ও আপিল শুনানির জন্য ২০২৭ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে বিচারপ্রার্থীদের। সে পর্যন্ত তাদের কারাগারের কনডেম সেলে কাটাতে হবে।

তবে এর আগেও শুনানি করা সম্ভব, যদি রাষ্ট্র বা সুপ্রিম কোর্ট অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ডেথ রেফারেন্স শুনানির উদ্যোগ নেয়। সেক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্ট বা বিজি প্রেস অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মামলার পেপারবুক প্রস্ত্তত করে থাকে। পেপারবুক প্রস্ত্তত হলেই অধস্তন আদালতের রায় ঘোষণার দুই বছরের মধ্যেই ডেথ রেফারেন্স নিষ্পত্তি সম্ভব বলে মনে করেন আইন বিশেষজ্ঞরা।

RELATED ARTICLES

Most Popular

Recent Comments