30.8 C
Rajbari
সোমবার, জুন ২৭, ২০২২
Homeজাতীয়নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের ‘সার্চ কমিটি’তে রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান বিচারপতি কুদ্দুস জামান

নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনের ‘সার্চ কমিটি’তে রাজবাড়ীর কৃতি সন্তান বিচারপতি কুদ্দুস জামান

ডেস্ক রিপোর্ট: বাংলাদেশে পরবর্তী নির্বাচন কমিশন (ইসি) পুনর্গঠনের জন্য সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি অনুসন্ধান কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের মধ্যে রয়েছেন রাজবাড়ী জেলার কৃতি সন্তান ও এক কালের মেধাবী ছাত্র ও ছাত্রনেতা হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এসএম কুদ্দুস জামান। অন্যরা হলেন মহা-হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (সিএজি) মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোহরাব হোসেন, সাবেক নির্বাচন কমিশনার মুহাম্মদ ছহুল হোসাইন  ও কথাসাহিত্যিক অধ্যাপক আনোয়ারা সৈয়দ হক।

এই সার্চ কমিটি পরবর্তী ইসি পুনর্গঠনে সরকারকে সহায়তা করবে। বর্তমান কমিশনের মেয়াদ আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি শেষ হবে। কমিটিকে ‘প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্যান্য নির্বাচন কমিশনার নিয়োগ আইন ২০২২’ শিরোনামের নতুন আইন অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ পেশ করতে বলা হয়েছে।

দেশের আগামী নির্বাচন নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছতার সাথে এবং সকলের কাছে যাতে গ্রহণযোগ্য হয় সে কারণে এই সার্চ কমিটির মাধ্যমে যারা সুপারিশকৃত হবে তা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ প্রসংগে এক প্রতিক্রিয়ায় টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, “কমিটির সদস্যগণের প্রতি শ্রদ্ধাভরে আমরা আবেদন করছি যে, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও অন্য কমিশনার পদে নিয়োগের জন্য তালিকা প্রণয়নের ক্ষেত্রে তারা যেনো এমন ব্যক্তিদের নাম বিবেচনায় নেন, যারা তাদের ব্যক্তি ও পেশাগত জীবনে সততা, দল নিরপেক্ষতা, ন্যয়পরায়নতা, বস্তুনিষ্ঠতা, সৎসাহস ও গ্রহণযোগ্যতার জন্য সুপরিচিত। একইসঙ্গে, মনোনীত ব্যক্তিদের যেনো কোনোভাবেই নৈতিকস্খলন, দুর্নীতি ও ঋণখেলাপির মতো অপরাধের সাথে সংশ্লিষ্টতা না থাকে, তা নিশ্চিত করা অপরিহার্য।”

প্রস্তাবিত নামের পুরো তালিকা জনগণের জ্ঞাতার্থে প্রকাশ করার বিষয়টিও অনুসন্ধান কমিটি নিশ্চিত করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, “অনুসন্ধান কমিটির কাজ সম্পর্কে আইনে বলা হয়েছে, এই কমিটি স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতার নীতি অনুসরণ করে দায়িত্ব পালন করবে। সেটা যেনো নিশ্চিত করা হয়, টিআইবি তার ওপরেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। আমরা বিশ্বাস করতে চাই, দেশের সর্বোচ্চ দায়িত্বশীল বিভিন্ন পদে আসীন ৪ জন এবং ২ জন বিশিষ্ট নাগরিকের সমন্বয়ে গঠিত এই কমিটি তাদের পদ ও অবস্থানের সম্মান রক্ষা করেই তাদের ওপর অর্পিত গুরুদায়িত্ব পালন করবেন।”

RELATED ARTICLES

Most Popular

Recent Comments